• ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮
  • ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪
  • ৮ই জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯

গ্রেফতার খালেদাকে নেওয়া হচ্ছে পুরনো কারাগারে

প্রকাশঃ ফেব্রুয়ারি ৮, ২০১৮

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে বকশীবাজার কারা অধিদপ্তরের প্যারেড গ্রাউন্ডে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত থেকে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কারাগারে নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানা গেছে।

এর আগে বেলা সোয়া ২টার দিকে পুরনো কারাগারে প্রবেশ করেছেন কারা মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজন) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন।  কারাগারের ভেতরে আরও বেশি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে। তারা কারাগারের ভেতরে টহল দিচ্ছে।

দুর্নীতি মামলার রায়ে সাজাপ্রাপ্ত সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে  পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হতে পারে বলে কারা অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে। এ কারণে বুধবার থেকেই (৭ ফেব্রুয়ারি) কারাগারের আশপাশে নতুন করে সিসি ক্যামেরা বসানো হয়। মোতায়েন করা হয় র‌্যাব ও পুলিশ।

কারা অধিদফতরের একটি নির্ভরযোগ্যে সূত্র জানিয়েছে, খালেদা জিয়াকে নাজিমউদ্দিন রোডের কারাগারে রাখার সম্ভাবনাই বেশি। সেখানে একটি ভবনের দ্বিতীয়তলার ডে- কেয়ার সেন্টার ইতোমধ্যেই প্রস্তুত করা হয়েছে।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ৫ বছর ও দলটির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ অপর পাঁচ আসামির ১০ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। দুপুরে ঢাকার বকশীবাজার কারা অধিদপ্তরের প্যারেড গ্রাউন্ডে স্থাপিত বিশেষ আদালতে বিশেষ জজ ৫ এর বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান এ রায় দেন।

এর আগে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় শুনতে আদালতে উপস্থিত হন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার সময় এ রায় ঘোষণা করেন বিচারক।

বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে রাজধানীর গুলশানের বাসভবন ‘ফিরোজা’ থেকে রওনা হন।

দুপুর ১ টা ৪৫ মিনিটে তিনি বকশীবাজার কারা অধিদপ্তরের প্যারেড গ্রাউন্ডে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত পৌঁছান তিনি।

এর মধ্যে মগবাজার, কাকরাইল মোড়, মৎসভবন, চাঁনখারপুলসহ রাজধানীর বেশ কয়েক জায়গায় পুলিশ, ছাত্রলীগ ও বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়েছে।  এর মধ্য দিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায় হলো ।

খালেদা জিয়া ও তার ছেলে তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়।

মামলার অপর আসামিরা হলেন, সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

রাজধানীর বকশিবাজার আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার পাঁচ নম্বর বিশেষ আদালতের জজ ড. আখতারুজ্জামানের আদালত গেলো ২৫ জানুয়ারি যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য আজকের দিন ধার্য করেছিলেন।

Powered by Live Score & Live Score App